Topic: 'ইনক্রেডিবল ইন্ডিয়া' স্লোগানে শুরু কমনওয়েলথ গেমস।

জওহরলাল নেহরু স্টেডিয়ামের স্ক্রিনে ভেসে উঠছে 'ইনক্রেডিবল ইন্ডিয়া'র গল্প। পরিশ্রম-বুদ্ধি দিয়ে ভারতের মানুষের এগিয়ে যাওয়ার কাহিনী। এমন গল্প শেষে প্রত্যয়ী কণ্ঠে ভেসে আসে 'ইনক্রেডিবল ইন্ডিয়া', শুনে শিহরিত হয় ভারতীয়রা। নতুনভাবে প্রতিজ্ঞা অনুভব করে। আর প্রতিবেশীরা সেসব অবাক বিস্ময়ে শুনে যায়। ভারতের প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিংও আমন্ত্রণ জানিয়ে বলেন, 'আপনারা সবাই ইনক্রেডিবল ভারতকে উপভোগ করুন।'
http://c.imagehost.org/0838/commonwealth-games11_0.jpg
এটাই বুঝি ভারতের নতুন স্লোগান। আর তা আরো পরিষ্কারভাবে বুঝিয়ে দিতেই যেন তারা আয়োজন করেছে ১৯তম কমনওয়েলথ গেমস। বুঝিয়েছেও দুইবার উদ্বোধনের ঘোষণা দিয়ে! হ্যাঁ, দুইবারই! প্রথমে প্রিন্স চার্লস রানির বাণী পড়ে শুনিয়ে গেমসের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন ঘোষণা করেছেন। ঠিক পরই রাষ্ট্রপতি প্রতিভা পাতিল দর্শকদের উদ্দেশে বক্তৃতা দেন এবং গেমস উদ্বোধনের দ্বিতীয় ঘোষণা দিয়ে বসেন, 'এবার গেমস শুরু হলো।' সঙ্গে সঙ্গে স্টেডিয়ামের আলোর ঝলকানিতেও মাধুর্য বেড়ে গেল, হর্ষে মেতে উঠল মানুষ। মানে কমনওয়েলথ গেমসের চিরায়ত উদ্বোধনের প্রথা ভেঙে ভারত নতুন করে দেখাল। সত্যি ইনক্রিডিবল ইন্ডিয়া।
ভারতের আনন্দিত হওয়ারই কথা। ১৯৮২ সালে এশিয়ান গেমসের পর এত বড় আয়োজন যে এটিই প্রথম। তাই উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে ভারতের প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিংকে বলতে শোনা যায়, ‘এটি আমাদের জন্য গর্বের এক মুহূর্ত। গোটা ভারতবাসীই এই গর্বের অংশীদার।’
গর্ব তো গোটা কমনওয়েলথভুক্ত দেশগুলোর জন্যই। এই প্রথম কমনওয়েলথভুক্ত ৭১টি দেশই খেলছে ১২ দিনের আসরে। অংশ নেওয়া অ্যাথলেটের সংখ্যার বিচারেও এটি এযাবৎকালের সবচেয়ে বড় কমনওয়েলথ গেমস। আজ থেকে ১৭টি খেলায় শুরু হয়ে যাচ্ছে মাঠের লড়াই।
কমনওয়েলথ গেমস শুধুই একটা গেমস নয়, এটি কমনওয়েলথভুক্ত দেশগুলোকে চার বছর পর এক ছাতার নিচে নিয়ে আসার উপলক্ষও, কুইন্স ব্যাটন রিলে দিয়ে যার শুরু হয়। এবার এক লাখ ৯০ হাজার কিলোমিটার পরিভ্রমণ করে কুইন্স ব্যাটন এসেছে দিল্লি। কাল সন্ধ্যায় ওই কুইন্স ব্যাটনের পাশে দাঁড়িয়ে মা রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথের পক্ষে শুভেচ্ছাবাণী পড়লেন যুবরাজ চার্লস। রানি শুভকামনা জানিয়েছেন সব অ্যাথলেটের জন্য। সবশেষে যুবরাজ বললেন, ‘গেমসের উদ্বোধন করতে পেরে আমি সম্মানিত বোধ করছি।’ ভারতের রাষ্ট্রপতি প্রতিভা পাতিল বক্তব্য শেষ করলেন গেমসের শুরু ঘোষণা করে।
উসাইন বোল্ট, আসাফা পাওয়েলের মতো তারকারা আসেননি বলে শুরুর আগেই সমালোচনার গুঞ্জন। কিন্তু তারকারা না আসায় কী হয়েছে! এসেছে পাকিস্তান। মার্চপাস্টে সেই নামটি উচ্চারিত হতেই করতালে মুখর হয়ে উঠল জওহরলাল নেহরু স্টেডিয়াম। কারণ তারা এসেছে অনেক দিন পর, সেই মুম্বাই আক্রমণের পর প্রথম কোনো পাকিস্তানি দলের ভারত সফর। আর এ সফর সম্ভব হয়েছে কমনওয়েলথ গেমসের জন্য। ক্রীড়ার আলোয় গেমস উদ্ভাসিত হবে, সেটা উপলক্ষ করে মানুষে মানুষে, জাতিতে জাতিতে রচিত হবে নতুন সেতুবন্ধন।
জওহরলাল নেহরু স্টেডিয়ামের দর্শক এরপর দেখল বিখ্যাত সুরকার এ আর রহমানের থিম সং। সাড়ে পাঁচ কোটি রুপি খরচ করে তৈরি এই থিম সং আর তাঁর পরিবেশনায় ছড়িয়ে দেওয়া হলো বন্ধুত্বের আহ্বান। ছিল আতশবাজির খেলাও। তবে সেটা খুব বেশি ছিল না।
এর আগে যতটুকু সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান হয়েছে, সবই ছিল ভারতের নানা বর্ণ, ভাষা আর সংস্কৃতিকে ফুটিয়ে তোলার প্রয়াস। দৃষ্টি কেড়েছে ‘রিদম অব ইন্ডিয়া’ নৃত্যগীত পরিবেশনায় ১০ বছরের শিশু কেশবের তবলা বাজানো। যতটা ছন্দের তালে তবলা বাজিয়ে গেল শিশুটি, ততটাই ছন্দ নিয়ে গেমসটা আয়োজনে মরিয়া ভারত।
অনুষ্ঠানে সে রকম কোনো চমক নেই, তার পরও মানুষের ছিল তুমুল আগ্রহ, কিন্তু তাতে জল ঢেলে দিয়েছে নিরাপত্তার বাড়াবাড়ি। অনেকে টিকিট হাতে নিয়ে ঢুকতে পারেনি স্টেডিয়ামে। দেখেনি তাদের ইনক্রিডিবল ইন্ডিয়ার নতুন সংস্করণ।

সুত্র:- কালের কণ্ঠ
প্রথম-আলো

১৯তম কমনওয়েলথ গেমস সফল হোক,এই কামনা রইলো।সাথে সাথে আশা থাকবে বাংলাদেশ দলও আমাদের জন্য সফলতা বয়ে আনবে।বাংলাদেশ দলকে আমার আন্তরিক শুভেচ্ছা।

উসাইন বোল্ট, আসাফা পাওয়েলের মতো তারকারা আসেননি বলে শুরুর আগেই সমালোচনার গুঞ্জন। কিন্তু তারকারা না আসায় কী হয়েছে! এসেছে পাকিস্তান। মার্চপাস্টে সেই নামটি উচ্চারিত হতেই করতালে মুখর হয়ে উঠল জওহরলাল নেহরু স্টেডিয়াম। কারণ তারা এসেছে অনেক দিন পর, সেই মুম্বাই আক্রমণের পর প্রথম কোনো পাকিস্তানি দলের ভারত সফর। আর এ সফর সম্ভব হয়েছে কমনওয়েলথ গেমসের জন্য। ক্রীড়ার আলোয় গেমস উদ্ভাসিত হবে, সেটা উপলক্ষ করে মানুষে মানুষে, জাতিতে জাতিতে রচিত হবে নতুন সেতুবন্ধন।

আমিও সেতুবন্ধন রচনা করলাম,কালের কণ্ঠ আর প্রথম আলোর মধ্যে।  ;q   ;q

মোঃ সাঈদুজ্জামান উপল
http://img684.imageshack.us/img684/3410/fb1d.jpg


Re: 'ইনক্রেডিবল ইন্ডিয়া' স্লোগানে শুরু কমনওয়েলথ গেমস।

আমিও সেতুবন্ধন রচনা করলাম,কালের কণ্ঠ আর প্রথম আলোর মধ্যে।  ;q   ;q

মজা পাইলাম! কমন ওয়েল্থ এ মজা পাই না! দেখবো কিনা সন্দেহ আছে! পেপার ই ভরসা!