Topic: রোনাল্ডো ম্যাজিকে কিংস কাপের কিং রিয়াল মাদ্রিদ

শেষ বাঁশি বাজতেই প্রবল উত্তেজনায় কেঁপে উঠলো রাতের মাদ্রিদ। কেউ নাচছে। কেউ পতাকা নাড়ছে। সুর, তাল, লয়ে অক্ষয় তখন আবেগ। আবেগে-আবেশে ভাসছে মাদ্রিদ। নির্ঘুম রাতের নিস্তব্ধতা খানখান করে ভেঙে পড়ল হাজার হাজার রিয়াল মাদ্রিদ সমর্থকের সশব্দ বিজয়োল্লাসে।

http://my.jetscreenshot.com/2862/m_20110422-u9rv-15kb.jpg

শুধু কি নীরবতা ভেঙে পড়ল! ট্রফিটাও ভাঙল। বার্সেলোনাকে হারানোর আনন্দে আত্মহারা রিয়াল ডিফেন্ডার সের্গিও রামোসের হাত থেকে ট্রফিটা পড়ে সত্যি সত্যিই ভেঙে গেল। আনন্দের আতিশয্যে রামেসের হাত থেকে ট্রফিটা পড়ে যায়। গোটা রিয়াল মাদ্রিদ দল তখন ছাদখোলা বাসে। কিংস কাপের কিংদের বাস যে মুহূর্তে মাদ্রিদের কেন্দ্রীয় সিবেলেস স্কোয়ারে প্রবেশ করবে, তখনই বিপত্তি। ১৫ কিলো (৩৩ পাউন্ড) ওজনের রুপার ট্রফি রামোসের হাত থেকে ফস্কে বাসের সামনে পড়ে। টিম বাস থামার আগেই চাকার নিচে ট্রফি। পুলিশ দ্রুত ছুটে গিয়ে ট্রফিটি তুলে দেয় বাসচালকের হাতে। ১০ টুকরো হয়ে যায় ট্রফিটি।
রিয়াল মাদ্রিদের উৎসব তাতে ম্লান হয়নি। কেন হবে! ১৯৯৩-র পর এই প্রথম যে তারা কিংস কাপ জিতল। তা-ও চিরশত্রু বার্সেলোনাকে হারিয়ে।

http://img801.imageshack.us/img801/3875/hotashmessi.jpg


হতাশ মেসি

মন ভাঙার চেয়ে তাই ট্রফি ভাঙা ঢের ভালো! স্পেনের ফুটবল ইতিহাসের সবচেয়ে মর্যাদাপূর্ণ, গরিমায় অনন্য এই ট্রফির জন্য কতদিন অপেক্ষা করতে হয়েছে রিয়ালকে? ঝাড়া ১৮ বছর। ১৯৯৩-তে শেষবার জিতেছিল তারা। এরপর শুধুই খরা আর খরা। সেই খরা গোছানো, গ্লানি-তাড়ানো বহুল প্রার্থিত জয় এল ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডোর হাত ধরে। অতিরিক্ত সময়ে পয়মন্ত পর্তুগিজ উইংগারের হেডে যে গোলটি পায় রিয়াল, সেটি যেন শুধু গোল নয়। রিয়াল-অনুরক্তদের অপেক্ষার প্রহরে অবসান ঘটানোর মাহেন্দ্রক্ষণও। প্রিয় শিষ্যের সৌজন্যে কোচ হোসে মরিনহো তার প্রথম ট্রফি পেলেন রিয়ালে।
ভ্যালেন্সিয়ায় শেষ বাঁশি বাজার সঙ্গে সঙ্গে রাতের মাদ্রিদ যেন উদ্বিঘ যৌবনা কোন রমণী হয়ে ওঠে। রোনাল্ডোরা যখন আনন্দের আবিরে প্লাবিত, মেসিরা তখন হতাশার চাদরে আবৃত। ক্যাসিয়াসদের এমন বাঁধভাঙা উল্লাসের কারণও রয়েছে। চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী বার্সেলোনার কাছে টানা পাঁচ ম্যাচে হারার পর লা লীগায় ১-১ ড্র। এরপরই এল উৎসবের রাত। কিংস কাপ জয়। রিয়াল-বার্সা দ্বৈরথ ফুটবলপিপাসুদের তৃষ্ণা মেটাবে এই মাসেই আরেকবার ২৭ এপ্রিল। ৩ মে আবার দেখা হবে দুই চিরপ্রতিদ্বন্দ্বীর। এল ক্লাসিকো ধারাবাহিকের শেষ পর্বে। সেই দুটি জিভে পানি এনে দেয়া ম্যাচের জন্য নিশ্চয় এখন তর সইবে না ফুটবলরসিকদের।
বার্সেলোনাকে হারিয়ে কিংস কাপ জেতার মধ্য দিয়ে রিয়াল গোলকিপার ক্যাসিয়াসের দীর্ঘলালিত স্বপ্ন পূর্ণ হল। এই একটি শিরোপাই এতদিন সোনার হরিণ হয়ে ছিল তার ঋদ্ধ ক্যারিয়ারে। স্বপ্ন পূরণের পর আবেগতাড়িত ক্যাসিয়াস অবশ্যই এই জয়ের কৃতিত্ব দিয়েছেন সমর্থকদের। ফুটবল এগারোজনের খেলা হলেও, সমর্থকদের পরোক্ষ অথচ প্রচ্ছন্ন ভূমিকা থাকে মাঠের বাইরে। সেটি স্বীকার করে নিয়ে রিয়াল-ভক্তদের কুর্নিশ জানাতে কুণ্ঠিত হননি বিজয়ী অধিনায়ক ক্যাসিয়াস।
ভ্যালেন্সিয়ার মেস্তাল্লা স্টেডিয়ামে কিংস কাপ ফাইনালে রিয়াল মাদ্রিদ ১-০ গোলের নাটকীয় জয় পায় অতিরিক্ত সময়ে রোনাল্ডোর হেডে দেয়া গোলে। ১৯৯০-এর পর রিয়াল-বার্সা এই প্রথম মুখোমুখি হয়েছিল কিংস কাপ ফাইনালে। সেবার বার্সেলোনা জিতেছিল ২-০ গোলে।
কাপ জিতে রিয়াল যখন টিমবাসে মাদ্রিদ শহরে পৌঁছে, তখন বৃহস্পতিবার ভোরের আলো ফোটার অপেক্ষায় স্পেনের রাজধানী। সমর্থকদের মুখে তখন স্লোগান ‘চ্যাম্পিয়ন, চ্যাম্পিয়ন’। কারও কারও শরীর স্পেনের পতাকায় জড়ানো। খেলোয়াড়রা তখন টিম বাস থেকে নিজেদের মোবাইল ফোনে উৎসবমুখর উম্মাতাল ভক্তদের ছবি তুলতে ব্যস্ত। স্প্যানিশ মিডিয়ার খবর অনুযায়ী, প্রায় ৬০ হাজার সমর্থক বিজয়ীদের বরণ করে নিতে ঘুম বিসর্জন দেয়। ৪১ বছরের আলবার্তো আগুয়াসিলের উচ্ছ্বাসে যেন রিয়াল- অনুরাগীদের অনুভূতি অনূদিত হয়েছে ‘এই দিনটির জন্য কত বছর অপেক্ষা করেছি। স্বপ্ন দেখেছি। ভালো লাগছে এটা দেখে যে, ফাইনালে আমরা বার্সেলোনাকে হারিয়েছি।’
ইনজুরির কারণে মাঠে নামতে পারেননি বার্সার ডিফেন্ডার কার্লোস পুওল। জাভিয়ের মাসচেরানো আর জেরার্ড পিকে জুটিকেই বার্সা কোচ পেপ গুয়ারডিওলা মাঠে নামান ডিফেন্ডার হিসেবে। কোচের আস্থার প্রতিদান দেন মাসচেরানো। প্রথমার্ধেই ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডোর শট রুখে বার্সাকে বাঁচিয়ে দেন মাসচেরানো। এরপর বার্সার সামনেও এসেছিল এগিয়ে যাওয়ার সুযোগ। জাভির দূরপাল্লার শট কাজে লাগাতে পারেননি আক্রমণভাগের মেসি-রড্রিগুয়েজ। বার্সা যেন ভুলেই গিয়েছিল নিজেদের ছোট ছোট পাসের স্বভাবসিদ্ধ খেলা। জার্মান মেসুত ওজিল ও রোনাল্ডো রিয়ালকে টেনে নেয়ার চেষ্টা করেন। ওজিলের কাছ থেকে বল পেয়ে রোনাল্ডোর আড়াআড়ি শট ফেরান বার্সার গোলরক্ষক হোসে পিনটো। এরপর মাঝমাঠের নিয়ন্ত্রণ নিজেদের হাতে তুলে নেয় বার্সা। ইনিয়েস্তা ও হার্নান্দেজ মাঝমাঠ নিজেদের দখলে নিয়ে নিলে মেসি-রড্রিগুয়েজরা আক্রমণ-পাল্টা আক্রমণে ম্যাচ জমিয়ে তোলেন। কিন্তু ইকার ক্যাসিয়াস কিংস কাপের শিরোপাক্ষুধা মেটাতে যে মরিয়া ছিলেন। মেসিদের আক্রমণ তাই একের পর এক রুখে দেন ক্যাসিয়াস। আক্রমণের শুরুটা করেছিলেন রোনাল্ডো। শেষটাও করতে তাই এগিয়ে এলেন তিনিই। মেসির সঙ্গে দ্বৈরথে জয়ী হওয়ার ক্ষুধাটা তাকেও তাড়িয়ে বেড়াচ্ছিল।



Re: রোনাল্ডো ম্যাজিকে কিংস কাপের কিং রিয়াল মাদ্রিদ

কপাল যারে কই গোপাল !!!!

মেডিকেল বই এর সমস্ত সংগ্রহ - এখানে দেখুন
Medical Guideline Books