Topic: আজ আষাঢ়ের প্রথম দিন !

http://i47.tinypic.com/16azalu.jpg

চালতা আর কদমফুল ছুঁয়ে বৃষ্টির ফোঁটা পড়বে। মেঠোপথ কাদা মাখামাখি। ঝুমবৃষ্টিতে নতুন সুর খেলবে টিনের চালে। একরাশ সুখ-দুঃখের স্মৃতি নিয়ে এসেছে আষাঢ়। আজ আষাঢ়ষ্য প্রথম দিবস। আজ ভোরের সূর্যটা উঠেছে বাংলা সনের জনপ্রিয় ঋতু বর্ষার। কষ্ট-ক্লান্ত মানুষের জন্য নতুন এই ঋতু বয়ে আনবে ভালো কোনো খবর।

বৃষ্টির শব্দে বাঙালির হৃদয় অজানা বিরহে ভারাক্রান্ত হয়ে ওঠে। বাঙালি কবিদের প্রিয় ঋতু বর্ষা। ময়ূরের পেখম মেলে নৃত্য আর কদমফুলের নয়নাভিরাম সৌন্দর্য বড় অনুষঙ্গ হয়ে আছে এই আষাঢ়ে। প্রকৃতির কবি জীবনানন্দ দাশ আষাঢ়কে বলেছেন, ধ্যানমগ্ন বাউল-সুখের বাঁশি। বাঙালির অতিপ্রিয় এই ঋতুর আগমনে প্রকৃতি তার রূপ আর বর্ণ বদলে ফেলে। গাছপালা, তরুলতা সবকিছুই যেন গ্রীষ্মের তাপদগ্ধ থেকে পরিতৃপ্তি নিতে স্নান করে ওঠে। কাব্যভাণ্ডারের বহু ছত্রে কেবল বর্ষা আবাহনের পঙ্ক্তি : 'হৃদয় আমার নাচেরে আজিকে, ময়ূরের মত নাচেরে। আকুল পরাণ আকাশে চাহিয়া উল্লাসে কারে যাচে রে।' আষাঢ়ে জলভারানত ঘনকৃষ্ণ মেঘরাশি আকাশ ছেয়ে রাখে। কখনো বা প্রাণনাথের মতো প্রকৃতিতে নামে বারিধারা। দাবদাহে চৌচির মাঠ-ঘাট, খাল-বিল, বন-বীথিকায় জেগে ওঠে নবীন প্রাণের ছন্দ। বাংলার নদীগুলো যৌবন ফিরে পায় থই থই পানিতে।

বৃষ্টি-বর্ষা উপভোগ বলতে নগরের মানুষের কাছে ফ্ল্যাটের বারান্দায় বৃষ্টিভেজা। বড়জোর ছাদে একপশলা বৃষ্টিতে ভিজে আসা। তবে এই নগরে বৃষ্টি বিলাসের চেয়ে কষ্টই বাড়ায় বেশি। ফুটপাতের অসহায় মুখগুলো সবচেয়ে বেশি কষ্ট পায়। ঝড়ে-বৃষ্টিতে পলিথিনে মোড়ানো তাদের বসত উড়ে যায়। কাঁথা-বালিশ ভিজে জবুথবু। তবুও এই নগরে সুখের জন্য আসা মানুষ সব সয়ে নেয়।

গ্রামের চিত্র ঠিক এর উল্টো। পুকুর, দিঘি, খালগুলোও বর্ষায় কানায় কানায় ভরে উঠবে। নতুন পানিতে মাছ ধরার ধুম লাগবে। বর্ষার অফুরন্ত জলে কৃষক আমন ধান বুনতে বুনতে দেখবে নতুন দিনের স্বপ্ন। বর্ষার অকৃত্রিম দান কৃষকের সেচের খরচ বাঁচিয়ে দেবে। তবে বর্ষার অতিবৃষ্টি বন্যাও নিয়ে আসে। আনন্দের মধ্যে নিয়ে আসে বেদনা। তাই বর্ষা তৈরি করে আনন্দ-বেদনার কাব্য।

পার্বত্য এলাকায় পাহাড়গুলো সাজবে নতুন সাজে। চৈত্র থেকে পাহাড়গুলোর লাস্যময় রূপ হারিয়ে গেছে। এখন ফিরবে। ঝরনাগুলোতে তেজী স্রোতধারা ছুটে চলা মুঙ্কর এক পরিবেশ সৃষ্টি করবে।

উদীচীর বর্ষাবরণ উৎসব : বর্ষা ঋতুকে বরণ করে নিতে প্রতিবছরের মতো এবারো বর্ষাবরণ উৎসবের আয়োজন করেছে উদীচী। আজ সকাল ৮টা থেকে সাড়ে ১০টা পর্যন্ত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা ইনস্টিটিউটের লিচুতলায় আয়োজিত এ অনুষ্ঠানে ছিল সঙ্গীত, নৃত্য, আবৃত্তি, বর্ষাকথন ইত্যাদি। দেশের বিশিষ্ট শিল্পীরা অনুষ্ঠানে অংশ নেন। 'দেশ টিভি' চ্যানেলে অনুষ্ঠানটি সরাসরি সম্প্রচার করা হয়।

বর্ষাবরণ উপলক্ষে সত্যেন সেন শিল্পী সংস্থা ও জাতীয় পথনাটক পরিষদের যৌথ উদ্যোগে অনুষ্ঠান হয় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারসংলগ্ন হাকিম চত্বরপ্রাঙ্গণে। প্রথম পর্বে বাংলালিংকের সহযোগিতায় সকাল ৭টা থেকে শুরু হওয়া এ অনুষ্ঠানে দেশের বিশিষ্ট শিল্পীরা অংশ নেন। অনুষ্ঠানটি চ্যানেল আই সরাসরি সম্প্রচার করে। দ্বিতীয় পর্বের অনুষ্ঠানটি বিকেলে শুরু হয়ে চলবে সন্ধ্যা পর্যন্ত। এটি আরটিভি সম্প্রচার করবে।

কৃতজ্ঞতায়ঃ মির্জা মেহেদী তমাল
সূত্রঃ কপি-পেষ্ট।

একজন মানুষের জীবন হচ্ছে~ক্ষুদ্র আনন্দের সঞ্চয়,একেকজন মানুষের আনন্দ একেক রকম...http://www.rongmohol.com/uploads/1805_adda_logo_4.gif

গনযোগাযোগ সচিবঃ ফাউন্ডেশন ফর ওপেন সোর্স সলিউশনস বাংলাদেশ, নীতি নির্ধারকঃ মুক্ত প্রযুক্তি।


Re: আজ আষাঢ়ের প্রথম দিন !

আজকে আষাড়ের প্রথম দিনে রাজশাহীতে অনেক বৃষ্টি হল। মনটা ভরে গেছে। রাজশাহীর মত এরকম জায়গাতে এরকম ঘটনা খুব ই rare। বৃষ্টি ভেজা প্রকৃতি দেখলেই মনটা কেমন ফ্রেশ হয়ে যাই। এরকম মন ফ্রেশ করা খবরের জন্য এক গ্লাস আময়ের শরবত!  :তালি: