Topic: রবীন্দ্রনাথের ১৪৯তম জন্মবার্ষিকী আজ

http://www.chobimohol.com/image-BED5_4BE45C95.jpg

আজি হতে শতবর্ষ পরে/কে তুমি পড়িছ বসি আমার কবিতাখানি/কৌতূহল ভরে, আজি হতে শতবর্ষে পরে!

আজি নব বসন্তের প্রভাতের আনন্দের লেশমাত্র ভাগ, আজিকার কোনো ফুল, বিহঙ্গের কোনো গান, আজিকার কোনো রক্তরাগ_ অনুরাগে সিক্ত করি পারিব কি পাঠাইতে/তোমাদের করে, আজি হতে শতবর্ষ পরে?' আজ পঁচিশে বৈশাখ। বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ১৪৯তম জন্মবার্ষিকী আজ। কবির ভাষায়, 'উদয় দিগন্তে ঐ শুভ্র-শঙ্খ বাজে মোর চিত্ত মাঝে, চির নূতনেরে দিল ডাক পঁচিশে বৈশাখ।' রবীন্দ্রনাথ বাঙালির প্রাণের মানুষ। বাঙালির আন্দোলন, সংগ্রাম, দ্রোহে, মননে এবং সৃজনশীলতার অনুপ্রেরণার উৎস। ১৮৬১ সালে জোড়াসাঁকো ঠাকুর বাড়িতে জন্মগ্রহণ করেন রবীন্দ্রনাথ। বিস্ময়কর প্রতিভার অধিকারী রবি ঠাকুর একাধারে ছিলেন কবি, নাট্যকার, ঔপন্যাসিক, সঙ্গীত রচয়িতা, ছোট গল্পকার, প্রাবন্ধিক, দার্শনিক, সুরস্রষ্টা, গায়ক, চিত্রশিল্পী, অভিনেতা, সমাজ সংস্কারক ও শিক্ষাবিদ। বাংলা সাহিত্যকে বিশ্ব সাহিত্যাঙ্গনে স্থান করে দেয়ার স্বীকৃতি স্বরূপ ১৯১৩ সালে গীতাঞ্জলী কাব্যগ্রন্থের জন্য অর্জন করেন নোবেল পুরস্কার। শান্তি নিকেতনে বিশ্ব ভারতী বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা করে রবীন্দ্রনাথ ভারতবর্ষে শিক্ষা বিস্তারে অসামান্য অবদান রেখেছেন। রবীন্দ্রনাথের রচিত গান-কবিতা আমাদের মুক্তিযুদ্ধে প্রেরণার উৎস ছিল। মৌলবাদ, সাম্প্রদায়িকতা, স্বৈরতন্ত্র প্রতিরোধে রবীন্দ্রনাথের সৃষ্টিকর্ম বাঙালির নির্ভরতার স্থান। রবীন্দ্রনাথের গান বাংলাদেশ ও ভারতের জাতীয় সঙ্গীত। কবি আমাদের নিত্যদিনের প্রেরণা। আগামী বছর কবির ১৫০তম জন্মজয়ন্তী যৌথভাবে পালন করবে বাংলাদেশ ও ভারত। রবীন্দ্র জন্মবার্ষিকী পালনে সরকারিভাবে ব্যাপক কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আজ সকাল ১০টায় রাজধানীর ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে মূল অনুষ্ঠান উদ্বোধন করবেন। এ উপলক্ষে রবীন্দ্র স্মৃতি বিজড়িত কুষ্টিয়ার শিলাইদহ, শাহজাদপুরের কুঠিবাড়ী, নওগাঁর পতিসর এবং খুলনার দক্ষিণদিহিতে কর্মসূচি পালিত হবে।
কুষ্টিয়া প্রতিনিধি : ২৫ বৈশাখ থেকে দুই দিনব্যাপী শুরু হচ্ছে বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ১৪৯তম জন্মজয়ন্তী উৎসব। এ কারণে বর্ণিল সাজে সাজানো হয়েছে কুষ্টিয়ার শিলাইদহ কুঠিবাড়ী।
প্রতি বছরের মতো এবারো সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ের সহযোগিতায় এখানে দু'দিনের রবীন্দ্রজয়ন্তী অনুষ্ঠান পালনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে জেলা প্রশাসন। এ আয়োজনে যাতে কোনো ফাঁক না থাকে সে লক্ষ্যে সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছেন জেলা প্রশাসনের কর্মকর্তারা। কুঠিবাড়ীর মূল ভবনের দেয়াল, গ্রিল ও প্রাচীরে দেয়া হয়েছে নানা রঙের আচড়। মূল ভবনের কাছেই তৈরি করা হয়েছে অস্থায়ী অনুষ্ঠান মঞ্চ। আয়োজকরা জানিয়েছেন, অনুষ্ঠান সফল করতে সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে। রবীন্দ্রনাথের ভক্তরা বলেছেন, রবীন্দ্রনাথের কবিতার সঙ্গে সম্পর্কিত উপকরণগুলো যদি তুলে ধরা হয় তাহলে এখানে পর্যটক দর্শনার্থী আকর্ষণ করা যেত। এ ব্যাপারে সরকারি ও বেসরকারি পর্যায়ে কার্যকর উদ্যোগ নেয়া হলে শিলাইদহ কুঠিবাড়ীকে ঘিরে গড়ে উঠতে পারে একটি পরিপূর্ণ পর্যটন কেন্দ্র। রবীন্দ্রনাথের সৃষ্টিকর্ম যারা পড়েন তারা তখন হয়তো চোখে দেখার চেষ্টা করবেন রবীন্দ্রনাথের কবিতা। ২৫ ও ২৬ বৈশাখ দু'দিনের জন্মজয়ন্তী উৎসবকে সামনে রেখে রবীন্দ্র ভক্তরা কুঠিবাড়ীতে ভিড় জমিয়েছেন।
নওগাঁ প্রতিনিধি : ২৫ বৈশাখ নওগাঁর আত্রাই উপজেলার পতিসর কুঠিবাড়িতে কবির ১৪৯ তম জন্মজয়ন্তী উপলক্ষে জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে নেয়া হয়েছে তিনদিনব্যাপী নানা কর্মসূচি। কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের কর্মময় জীবন ও স্মৃতি নিয়ে আলোচনা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও দেবেন্দ্র মঞ্চে অনুষ্ঠিত হবে কবি রচিত ছোট গল্প "মুক্তির উপায়" অবলম্বনে নাটক। এছাড়া কুঠিবাড়ী প্রাঙ্গণে আয়োজন করা হয়েছে তিন দিনব্যাপী রবীন্দ্র মেলা। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে নৌ-পরিবহনমন্ত্রী মো. শাজাহান খান, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা মন্ডলীর সদস্য আব্দুল জলিল এমপি, শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয় সংক্রান্ত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি ইসরাফিল আলম এমপি, দেশবরেণ্য কবি সাহিত্যিক উপস্থিত থাকবেন।
নওগাঁ শহর থেকে ৩৮ কিমি দূরে নিভৃত পল্লী আত্রাই উপজেলার মনিয়ারী ইউনিয়নের পতিসরে কবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের কুঠিবাড়ি। এখানে প্রতি বছর কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের জন্মজয়ন্তী উপলক্ষে বসে মানুষের মিলন মেলা। দূরদূরান্ত থেকে কবি ভক্তরা ছুটে আসেন তাদের প্রিয় কবির স্মৃতি বিজড়িত পতিসর কুঠিবাড়ি প্রাঙ্গণে।
কবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর পতিসর কুঠিবাড়িতে সর্বশেষ আসেন ১৯৩৭ সালে। কুঠিবাড়ীতে সংরক্ষণ করা হয়েছে কবির নানা স্মৃতি সামগ্রী।
সিরাজগঞ্জ ব্যুরো ও শাহাজাদপুর প্রতিনিধি : আজ ২৫ বৈশাখ শনিবার বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ১৪৯ তম জন্মবার্ষিকী উদযাপন উপলক্ষে তিনদিনব্যাপী বিভিন্ন অনুষ্ঠানমালা সিরাজগঞ্জ জেলার শাহজাদপুর উপজেলার রবীন্দ্র কাচারি বাড়িতে শুরু হচ্ছে। এবারে গীতাঞ্জলির শতবর্ষপূর্তিতে গীতাঞ্জলিভিত্তিক অনুষ্ঠানের পাশাপাশি শাহজাদপুরে রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার বিষয়টি বিশেষভাবে আলোচিত হচ্ছে।
সিরাজগঞ্জ জেলা প্রশাসন আয়োজিত প্রথম দিনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন প্রধানমন্ত্রীর সংস্থাপন ও প্রশাসন বিষয়ক উপদেষ্টা এইচ টি ইমাম। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করবেন সিরাজগঞ্জের জেলা প্রশাসক মো. আমিনুল ইসলাম। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন স্থানীয় সাংসদ চয়ন ইসলাম, সাংসদ ইসাহাক হোসেন তালুকাদার, সাংসদ শফিকুল ইসলাম, সাংসদ তানভির শাকিল জয়, সাংসদ বেগম রুমানা মাহমুদ, পুলিশ সুপার মোশারফ হোসেন, উপজেলা চেয়ারম্যান হাসিবুর রহমান স্বপনসহ রাজনৈতিক ও সুধীবৃন্দ।
বিকালে রবীন্দ্রনাথের উপর অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় মূল প্রবন্ধ পাঠ করবেন প্রফেসর ড. আব্দুল খালেক। সন্ধ্যায় অনুষ্ঠিত হবে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।
দ্বিতীয় দিনের অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি থাকবেন মৎস্য ও প্রাণিসম্পদমন্ত্রী মো. আব্দুল লতিফ বিশ্বাস। সমাপনী অনুষ্ঠানের তৃতীয় দিনে প্রধান অতিথি থাকবেন সংস্কৃতিবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব হেদায়েতুল্লাহ্ আল মামুন।
এছাড়াও তিনদিনব্যাপী অনুষ্ঠানে রবীন্দ্রনাথের উপর আলোচনা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে। দেশের বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের খ্যাতিমান শিক্ষাবিদ, সরকারি ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা, ভারতীয় ও জাতীয় পর্যায়ের শিল্পীসহ জেলা ও উপজেলা পর্যায়ের বিভিন্ন শিল্পীরা সঙ্গীত, নাটক ও নৃত্য পরিবেশন করবেন। তিনদিনব্যাপী এই উৎসব উপলক্ষে শাহজাদপুর পাইলট উচ্চবিদ্যালয়ের মাঠে আয়োজন করা হয়েছে রবীন্দ্র মেলা।
ইতোমধ্যে রবীন্দ্রভক্তরা কাচারিবাড়ি চত্বরে আসতে শুরু করেছেন। রবীন্দ্র কাচারিবাড়ি এলাকাটিও বিশেষ সাজে সজ্জিত করা হয়েছে।